অন্ধত্বের চশমা

আমরা প্রতিদিন চারপাশে যা কিছু দেখি। সেই দেখার বিষয়টা নির্ভর করে, আমরা কোন চশমা চোখে লাগিয়ে দেখছি। চোখে লাগিয়ে দেখার চশমা বিভিন্ন ধরণের হয়। যেমন যুক্তির চশমা। জ্ঞানের চশমা। ভক্তির চশমা। বিশ্বাসের চশমা। আলোর চশমা অন্ধত্বের চশমা। যুক্তির চশমা জ্ঞানের চশমা আলোর চশমা একে অন্যের পরিপুরক। ঠিক তেমনই বিশ্বাসের চশমা ভক্তির চশমা অন্ধত্বের চশমাও একে অনন্যের পরিপুরক। যুক্তির চশমা আমাদের হাতে যে জ্ঞানের চশমা তুলে দেয়, সেই চশমা দিয়েই আমরা আলোর চশমার নাগাল পেয়ে যাই। আবার বিশ্বাসের চশমা আমাদের হাতে যে ভক্তির চশমা ধরিয়ে দেয়। সেই চশমা দিয়েই আমরা অন্ধত্বের চশমায় আমাদের চোখ ঢেকে ফেলি। এটাই মানব সমাজের ধর্ম। স্থান কাল পাত্র ভেদে এর রকমফের প্রায় একই রকম ভাবে ক্রিয়াশীল থাকে। মানুষের ইতিহাস কিন্তু তেমনটাই সাক্ষ্য দেয়। এখন কোন সমাজ কতোটা উন্নত, তা নির্ভর করে কোন সমাজের সংখ্যাগুরু অংশ কোন ধরণের চশমার দখল নিয়ে বসে রয়েছে, তার উপরেই। আবার যুগে যুগে একই সমজ তো একই জায়গায় আটিকিয়ে থাকে না। সমাজ চলতে থাকে। চলতে চলতে সে ক্রমাগত বাঁক বদল করতে থাকে। কখনো সে আলোর সন্ধানী। কখনো সে অন্ধকারের উপাসক।

বিস্তারিত পড়ুন