অধিকার বোধের ভাইরাস

দাম্পত্যে অধিকার বোধ নর নারীর সম্পর্ককে এক ধরণের অসুস্থতার বেদীতে স্থাপন করে রাখে। স্বামী স্ত্রী দুইজনই পরস্পরের উপরে অধিকার বোধ ফলিয়ে ফলিয়ে অপরের ভালোবাসার লিটমাস টেস্ট নিতে চায়। আর পিঠচুলকানি যেমন, যত চুলাকানো যায়, ততই বেড়ে যায়। এই লিটমাস টেস্টও ঠিক সেই রক‌ম। যত টেস্ট নেওয়া যায়, ততই টেস্ট নেওয়ার খিদে যায় বেড়ে। ফলে দাম্পত্যে অধিকার বোধ একটা এল্যার্জির মতোই ক্রমেই পারস্পরিক সম্পর্ককে ছেয়ে ফেলতে থাকে। এমন ভাবেই ছেয়ে ফেলতে থাকে যে, এর ভিতর থেকে স্বামী স্ত্রী কেউ বেড়িয়ে আসতে পারে না। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দেখা যায়, এই অধিকার বোধের পাল্লা, স্বামী বা স্ত্রী কোন একজনের দিকেই বেশি ভারী হয়। অর্থাৎ সেই’ই অপরের উপরে দাম্পত্যের অধিকার বোধ ফলাতে থাকে বেশি করে। অন্য পক্ষ নিয়ম করে সেই অধিকার বোধের কাছে যত বেশি নতজানু, দুইজনের দাম্পত্য তত বেশি সুখী হয়ে ওঠে। অধিকাংশ স্বামী কিংবা স্ত্রী এই ভাবেই সুখী দাম্পত্য ধরে রাখতে নিজের ব্যক্তিত্বের সাথে কম্প্রোমাইজ করে নেয়। আর সেই সুযোগে তাদের জীবনসাথী অধিকার বোধ ফলাতে ফলাতে তাদেরকে প্রায় মেনি বেড়ালের মতোই পোষ মানিয়ে নেয়। দৈবাৎ দুইজনেরই অধিকার বোধ ফলানোর দুরারোগ্য রোগ প্রবল হয়ে দেখা দিলে, সেই দাম্পত্য বেশিদিন টেকানোই দায়। বস্তুত অমন দাম্পত্য টেকানোই অনুচিত। ফলে দাম্পত্যে অধিকার বোধে এক বিষবৃক্ষ স্বরূপ। না, দম্পতিরা অধিকাংশই সেই কথা মুখে স্বীকার করতে কেউই রাজি নন। অন্তত এক আধবার দাম্পত্যের ঘানিতে যাঁদের বাঁধা পড়তে হয়েছে।

বিস্তারিত পড়ুন